শেখ হাসিনার ভাষণ উন্নয়ন-অর্জনের বস্তুনিষ্ঠ দলিল: সেতুমন্ত্রী

শেখ হাসিনার ভাষণ উন্নয়ন-অর্জনের বস্তুনিষ্ঠ দলিল: সেতুমন্ত্রী

জাতির উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ গত ১২ বছরের ঈর্ষণীয় উন্নয়ন ও অর্জনের বস্তুনিষ্ঠ দলিল বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

শুক্রবার বিকেলে তার সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ের সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা জানান।

সেতুমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার ভাষণ জনগণের প্রাত্যহিক জীবন থেকে উঠে আসা বাস্তব চিত্রের প্রতিফলন। জাতির উদ্দেশ্যে তার দেয়া ভাষণ সময়োপযোগী ও দিকনির্দেশনামূলক। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে গত এক যুগে আর্থ-সামাজিকসহ অন্যান্য খাতে দেশের অভাবনীয় উন্নয়ন, অগ্রগতি ও মানুষের জীবনমানের ক্ষেত্রে দৃশ্যমান অগ্রগতির সংক্ষিপ্ত চিত্র ফুটে উঠেছে। এছাড়া ভাষণে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের রূপরেখাও প্রস্ফুটিত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ২০০৮ সালে মাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ৬২৫ ডলার। ১২ বছর শেখ হাসিনার নেতৃত্ব থাকায় বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৪ মার্কিন ডলারে। দারিদ্র্যের হার এখন ৪১.৫ থেকে ২০ শতাংশে এবং অতি দারিদ্র্যের হার ২২ শতাংশ থেকে ১১ শতাংশে নেমে এসেছে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি আমলে বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল মাত্র ৩ হাজার ৩ শত মেগাওয়াট। ২০০৯ সাল থেকে ২০২০ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকার প্রায় ১৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়েছে। বর্তমানে দৈনিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ২৪ হাজার ৪২১ মেগাওয়াট দাঁড়িয়েছে। 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি জনগণ দ্বারা বারবার প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। তাই মিথ্যাচারের মাধ্যমে দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করে সরকারের উন্নয়নের সুফল থেকে বঞ্চিত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে বিএনপি। বিএনপি- জামায়াতের দুঃশাসনে সরকারের সব খাত দুর্নীতিতে নিমজ্জিত ছিল। বিএনপি-জামায়াত দেশের ললাটে টানা পাঁচ বার দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের কালিমা লেপে দিয়েছিল। দেশের মানুষ আর বিএনপির অপশাসনের উপত্যকায় ফিরে যেতে চায় না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অপপ্রচারের ধারাবাহিকতায় বিএনপি করোনা ভ্যাকসিন নিয়েও মিথ্যাচার করছে। করোনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তাই সত্য এবং আমরা সেটা বাস্তবে প্রমাণ করে দেখাবো।