ঢাকামঙ্গলবার , ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন ও বিচার
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. ধর্ম
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মালয়েশিয়ায় ১০ বিদেশি শিক্ষার্থীর ৫ মিলিয়ন রিঙ্গিত ক্ষতিপূরণ দাবি

খবরান্তর ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১ ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ভুল উপস্থাপনা, অবহেলা এবং চুক্তি লঙ্ঘনের দায়ে ৫ মিলিয়ন রিঙ্গিত ক্ষতিপূরণের দাবি তুলেছে বাংলাদেশসহ ছয়টি দেশের ১০ বিদেশি শিক্ষার্থী। এমকিউএ স্বীকৃতি প্রত্যাহারের পর এলইউসিটি থেকে এ দাবি করেছেন এ ১০ বিদেশি শিক্ষার্থী।

একটি সূত্রে জানা গেছে, লিমককুইং ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির (এলইউসিটি) ১০ জন সাবেক আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ক্লাউড কম্পিউটিং টেকনোলজিতে (বিসিসিটি) প্রতিষ্ঠানের ব্যাচেলর অব কম্পিউটার সায়েন্সের (বিসিসিটি) মালয়েশিয়ান কোয়ালিফিকেশন এজেন্সির (এমকিউএ) স্বীকৃতি প্রত্যাহারের পর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় পাঁচ মিলিয়ন রিঙ্গিত ক্ষতিপূরণ চাইছে তারা।

১০ সেপ্টেম্বর ভাইবস অনলাইনে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্বকারী একজন আইনজীবীর মতে এলইউসিটি- এর ভুল উপস্থাপনা, অবহেলা এবং চুক্তি লঙ্ঘনের জন্য পাঁচ মিলিয়ন রিঙ্গিত ক্ষতি হয়েছে। এ বিষয়ে উচ্চ-শিক্ষামন্ত্রী দাতুক সেরি নোরাইনি আহমদের কাছেও বৈঠক চেয়ে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন যে মে মাসে এমকিউএ দ্বারা স্বীকৃতি প্রত্যাহারের কারণে বিসিসিটি প্রোগ্রামের বৈশ্বিক স্বীকৃতি ছিল না। এমকিউএ হলো পাবলিক এবং প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগ্যতার স্বীকৃতি প্রদানকারী সংস্থা এবং এটি উচ্চশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন।

আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া সাবেক শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশ, ইরাক, সেনেগাল, পাকিস্তান, নাইজেরিয়া এবং সিরিয়ার। তারা ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে স্নাতক হয়েছেন। তাদের প্রতিনিধি চৌধুরী আতিকুর হাবিবুর বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পাঁচ মিলিয়ন রিঙ্গিত ফি প্রদত্ত, মালয়েশিয়ার জীবনযাত্রার খরচ এবং আনুষাঙ্গিক অর্থ প্রদানের ওপর ভিত্তি করে। তারা দাবি করেছে, স্বীকৃতির সমস্যা এবং তাদের নিজ দেশে এবং অন্য কোথাও কর্মসংস্থান পেতে অসুবিধার কারণে মানসিক চাপের শিকার হতে হয়েছে।

চৌধুরীর অভিযোগ, ২৫ মার্চ ২০১৪ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে বিসিসিটি প্রোগ্রামে এমকিউএ অস্থায়ী স্বীকৃতি দিয়েছে।

জানা গেছে, এলইউসিটি ২০১৭ সালের নভেম্বরে পূর্ণ স্বীকৃতির জন্য আবেদন করেছিল। কিন্তু ২০১৯ সালে এমকিউএ এর স্বীকৃতি কমিটি কর্তৃক স্বীকৃতি প্রত্যাখ্যান করা হয়। বিসিসিটি প্রোগ্রামের স্বীকৃতির জন্য প্রয়োজনীয় মানগুলোর ন্যূনতম প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে মন্ত্রণালয় এলইউসিটি কর্তৃক দাখিল করা আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছিল এবং স্বীকৃতি প্রত্যাহার বহাল ছিল।

এলইউসিটি মে মাসের প্রথম দিকে বলেছিল যে এটি একটি সাম্প্রতিক স্বীকৃতি নিরীক্ষায় পতাকাঙ্কিত হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে তারা আটটি প্রোগ্রাম সংশোধন করে পুনরায় জমা দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, সব কোর্সের স্বীকৃতি একটি চলমান প্রক্রিয়া। এর জন্য পরিপক্বতা অর্জন এবং এমকিউএ দ্বারা যাচাই-বাছাই প্রয়োজন। বিশ্ববিদ্যালয়টি জানিয়েছে, তাদের উচ্চশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে নিবন্ধিত ৯৮টি একাডেমিক প্রোগ্রাম রয়েছে এবং সম্পূর্ণ এমকিউএ স্বীকৃতি রয়েছে।

চৌধুরী জানান, সাতটি মাস্টার্স প্রোগ্রাম এবং একটি ডক্টরেট সহ আটটি প্রোগ্রাম প্রত্যাহারের কারণে আটশর বেশি শিক্ষার্থী অচল হয়ে পড়েছিল।

তিনি বলেন, এমকিউএ ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আগস্ট মাসে একটি অনলাইন বৈঠকে প্রকাশ করেছে যে মালয়েশিয়ার আইনে এমন কোনো বিধান নেই যা এলইউসিটিকে স্বীকৃতির জন্য জমা দিতে বাধ্য করতে পারে।

বৈঠকে এমকিউএর উপ-প্রধান নির্বাহী প্রফেসর খায়রুল সাল্লাহ মোহাম্মদ সাহরি এবং এমকিউএ-র সিনিয়র অ্যাক্রেডিটেশন ডিরেক্টর লিলিয়ান কেক সিউ ইয়কিক উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের পর প্রাক্তন বিসিটিটি শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১০ জন আইনি প্রতিকার চাইতে একজন আইনজীবী নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।